Home / জেলার সংবাদ / করোনায় মৃতদের দাফনে প্রস্তুত ওরা ১৪ জন

করোনায় মৃতদের দাফনে প্রস্তুত ওরা ১৪ জন

আলমগীর হোসেন (লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি): করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) মৃত্যু হলে তাদের দাফনে জন্য প্রস্তুত হয়েছে সামাজিক সংগঠন ‘লক্ষ্মীপুর নন্দন ফাউন্ডেশন’। সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা রাজু আহম্মদ ও বর্তমান সভাপতি রাজন  মোল্লা নেতৃত্বে ১৪  সদস্যের নন্দনের একটি দল ইতিমধ্যে তাদের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে।

জানা গেছে, লক্ষ্মীপুর জেলায় করোনয় আক্রান্ত হয়ে কেউ যদি মারা যায় তাহলে তার দাফন ও জানাজার জন্য প্রস্তুত রয়েছে ১৪ সদস্যের একটি দল। দলটির জানাজার জন্য ইমান সাহেব প্রস্তুত।

লক্ষ্মীপুর জেলার ৫ উপজেলার যে কোন এলাকায় করোনা সংক্রান্ত কারণে কোন ব্যক্তি মারা গেলে সেখানে যাবে দলটির সদস্যরা। অবশ্য মৃত ব্যক্তির স্বজনদের ও জেলা প্রশাসনের অনুমতি সাপেক্ষ তাদের এ কার্যক্রম চলবে।

এ ব্যাপারে নন্দন ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্টাতা রাজু আহম্মদ বলেন, কদিন আগে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে একটি ছবি দেখে খুব খারাফ লাগে। এতে দেখা গেছে, করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া এক ব্যক্তিকে তার তিন ভাই কাধে করে দাফনের জন্য নিচ্ছিলেন। কেউ লাশ বহনের জন্য খাটিয়া দেয়নি, এমনকি তার দাপনে কেউ এগিয়েও আসেনি।

পরবর্তী পর্যায়ে প্রথমে আমি আমার পরিবারের সঙ্গে আলোচনা করে এ দায়িত্ব নেয়ার সিদ্বান্ত নিই। এপর সংঘটনের নেতাকর্মীদের জানলে তারাও পাশে থাকার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। এ উপলক্ষে তারা জানাজা পড়ার জন্য একটি দল তৈরি করেছেন। প্রথমে ব্যক্তিকে সৎকারের পর থেকে তারা

লায়ন্স ক্লাব অব লক্ষ্মীপুর সেন্ট্রাল প্রোটেকশন ইকুপমেন্ট পিপিই দিয়েছেন। এ  দলের সদস্যরা হলেন, নন্দন ফাউন্ডেশনের সভাপতি রাজন মোল্লা, সাধারন সম্পাদক জুয়েল রানা হিমু, ফাহাদ বিন বেলায়েত ,মো:মাইনুদ্দিন, মো: মিল্লাত হোসেন, মাও:আনোয়ার হোসেন, রাজু , মো:রাজু । এছাড়া নন্দন সভাপতি পৌর শহরের বিভিন্ন এলাকায় জীবানুনাশক ওষুধ ছিটানোসহ ত্রাণ কাযক্রম পরিচালনা করেছিলেন।

লক্ষ্মীপুর জেলার ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এর উপ-পরিচালক আশেকুর রহমান জানায়,করোনাভাইরাস আক্রান্ত মৃত ব্যক্তি ভাইরাস ছড়ায় না। এখন পর্যন্ত এটা প্রমাণিত হয়নি যে মৃত ব্যক্তির কাছ থেকে অন্য কোনো ব্যক্তির দেহে ভাইরাসটি ছড়িয়েছে। মৃতদেহ নিজ নিজ ধর্মীয় বিধি অনুযায়ী জানাজা, দাফন বা সৎকার করা যাবে।

মৃতদেহ পরিবহনের জন্য আলাদা বিশেষ কোনো পরিবহনের দরকার নেই। মৃতদেহের গায়ে কোনো ধরনের কেমিক্যাল ছিটানোরও দরকার নেই। মৃতদেহ যিনি গোসল করাবেন, তিনি একটি মাস্ক, এক জোড়া গ্লাভস এবং একটি ডিসপোজিবল গাউন পরবেন। কবর দেয়ার ক্ষেত্রেও বিশেষ কোনো সতর্কতা নেই।

সরকারি এই কর্মকর্তার আহ্বান, ‘আসুন, মৃত ব্যক্তিদের সম্মান দিই। আতঙ্কিত না হই। করোনা ভাইরাসে যাঁরা মারা যাচ্ছেন, তাঁরা তো আমাদেরই কেউ। শেষ বিদায় টুকু সম্মানের হোক। আর যাঁরা সৎকারে অংশ নিচ্ছেন, তাঁরা অবশ্যই যথাযথ ব্যবস্থা মেনে চলবেন।’

About Alamgir Hossain

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Powered by Dragonballsuper Youtube Download animeshow