ঢাকা, শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২, ১২ চৈত্র ১৪২৯, ২ জ্বমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দেখাবে না কোনো চ্যানেল



টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দেখাবে না কোনো চ্যানেল

আগামী অক্টোবরের ১৬ তারিখে অনুষ্ঠিত হচ্ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। এখনো বাংলাদেশের কোন প্রতিষ্ঠান বিশ্বকাপের ম্যাচ সম্প্রচারের সত্ত্ব পায়নি। যে কারণে সরাসরি খেলা দেখা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। 

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল আইসিসি এবং এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল এসিসির আয়োজিত ক্রিকেট ম্যাচগুলো সম্প্রচার করে স্টার গ্রুপের প্রতিষ্ঠান স্টার ডিজনি। বাংলাদেশে স্টার ডিজনি অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান হচ্ছে স্পোরডিয়াম। বাংলাদেশের জন্য বিভিন্ন ক্রিকেট টুর্নামেন্টের সম্প্রচার সত্ত্ব কিনে থাকে যেসব প্রতিষ্ঠান, এটি তার অন্যতম। কিন্তু আর কয়েক সপ্তাহ পরে যে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শুরু হতে যাচ্ছে, সেটি বাংলাদেশের কোন টেলিভিশন চ্যানেল দেখাতে পারবে কিনা, তা এখনো অনিশ্চিত।

স্পোরডিয়ামের প্রধান নির্বাহী জিয়াউদ্দিন আদিল বিবিসিকে বলেছেন, সম্প্রচার সত্ত্ব কেনার জন্য অর্থ পাঠানোর ছাড়পত্র এখনো না পাওয়ার কারণেই এই অনিশ্চয়তা। তিনি বলেছেন, "বর্তমানে আমাদের এশিয়া কাপের অ্যাপ্লিকেশনটা এখনো প্রসেস হয়নি। সেটার জটিলতায়ই এখন টি-টোয়েন্টি ওয়ার্ল্ড-কাপের সম্প্রচারটা অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে। ইউজুয়ালি এগুলা ১০০ পারসেন্ট প্রি-পেমেন্ট হয়ে থাকে।

এখন এশিয়া কাপের পেমেন্ট করতে পারিনি দেখে, বাংলাদেশ উইমেন্স এশিয়া কাপ হোস্ট করছে, যেটা অক্টোবরের ১ তারিখ থেকে শুরু হচ্ছে সিলেটে- চারটা দেশ খেলবে ওখানে- বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান এবং শ্রীলঙ্কা, সেটারও সম্প্রচার সত্ত্ব নিয়ে আমাদের কাছে কোন নির্দেশনা নাই, তিনি বলছেন। এখন আমরা স্টার স্পোর্টসের সাথেও আলোচনা করতে পারছি না যে আমাদের ওটা দেখানোর পারমিশন দেবে কিনা। কারণ আমরা অলরেডি একটা ডেডলকে চলে গেছি স্টার স্পোর্টসের সাথে, তাদেরকে আমাদের আগের ইভেন্টের টাকা পাঠাতে পারিনি বলে," বলছেন স্পোরডিয়ামের প্রধান নির্বাহী জিয়াউদ্দিন আদিল।

জিয়াউদ্দিন বলেছেন, আইসিসি এবং এসিসির নিয়ম অনুযায়ী সম্প্রচার সত্ত্বের মেয়াদ থাকে চার বছর, অর্থাৎ ওই চার বছর সংস্থা দুইটির যত টুর্নামেন্ট হবে, সেটি ওই লাইসেন্স দিয়ে দেখানো যাবে। কিন্তু এক্ষেত্রে শর্ত হচ্ছে, প্রতিটি টুর্নামেন্ট শুরুর আগে চুক্তি অনুযায়ী পুরো অর্থ পরিশোধ করতে হবে।


   আরও সংবাদ