ঢাকা, সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২, ২৪ অগ্রহায়ন ১৪২৯, ১০ মহররম ১৪৪৪

মেট্রোরেলের প্রথম নারী চালক লক্ষ্মীপুরের মরিয়ম



মেট্রোরেলের প্রথম নারী চালক লক্ষ্মীপুরের মরিয়ম

মেট্রোরেলের প্রথম নারী চালক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন লক্ষ্মীপুর জেলার মেয়ে মরিয়ম আফিজা। তিনি নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) সাবেক শিক্ষার্থী। মেট্রোরেলের চালকের পদটির নাম ‘ট্রেন অপারেটর’। এ পদে ২৫ জনের সঙ্গে ২০২১ সালের ২ নভেম্বর নিয়োগ পান মরিয়ম। তিনি নোবিপ্রবির কেমিস্ট্রি অ্যান্ড কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী ছিলেন। 

মেট্রোরেলের প্রথম নারী চালক হওয়ার অনুভূতি জানিয়ে মরিয়ম বলেন, গত বছরের নভেম্বরে আমি নিয়োগ পেয়েছি। মেট্রোরেল বাংলাদেশে প্রথম, তাই আগ্রহ থেকেই এ চাকরিতে আবেদন করেছিলাম। নিয়োগ পাওয়ায় মেট্রোরেলের সঙ্গে নিজের নামটিও স্মরণীয় করতে পারবো, এটাই আমার আনন্দের বিষয়। মেট্রোরেল যেমন স্বপ্নের মতো, এটি চালানোও আমার কাছে একটা স্বপ্ন। 

এদিকে নিয়োগের পর মরিয়ম আফিজা চট্টগ্রামের হালিশহরে বাংলাদেশ রেলওয়ের ট্রেনিং অ্যাকাডেমি থেকে ট্রেন চালনায় দুই মাসের প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। ঢাকায় ফিরে আরও চার মাস প্রশিক্ষণ নেন। বর্তমানে উত্তরার দিয়াবাড়িতে মেট্রোরেলের ডিপোতে কারিগরি ও প্রায়োগিক প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। এখানে মেট্রোরেলের নির্মাতা প্রতিষ্ঠান জাপানের মিতসুবিশি-কাওয়াসাকি কোম্পানির বিশেষজ্ঞরা ট্রেন পরিচালনার কারিগরি ও প্রায়োগিক নানা প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন। এরপর তিনি দিল্লি মেট্রোরেল অ্যাকাডেমিতেও প্রশিক্ষণ নেবেন। প্রয়োজনে ট্রেন পরিচালনায় যুক্ত ব্যক্তিদের জাপানেও প্রশিক্ষণ দেওয়ার পরিকল্পনা আছে কর্তৃপক্ষের।

নোবিপ্রবির কেমিস্ট্রি অ্যান্ড কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. নেওয়াজ মোহাম্মদ বাহাদুর বলেন, নারীরা কর্মক্ষেত্রের বিভিন্ন পর্যায়ে মেধার স্বাক্ষর রাখছেন। এর অংশ হিসেবে আমাদের শিক্ষার্থী মেট্রোরেলের চালক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছে। মেট্রোরেলের সঙ্গে মরিয়মও ইতিহাসের পাতায় জায়গা করে নেবে। 

জানা যায়, দেশের প্রথম মেট্রোরেল আগামী ১৬ ডিসেম্বর চালু হচ্ছে। সম্পূর্ণ বিদ্যুৎচালিত এ মেট্রোরেলের প্রতিটি কোচ শীতাতাপ নিয়ন্ত্রিত (এসি)। এর মাধ্যমে বাংলাদেশ আধুনিক গণপরিবহন ব্যবস্থার যুগে প্রবেশ করবে। দেশে মেট্রোরেল নির্মাণ ও পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছে সরকারি মালিকানাধীন ঢাকা ম্যাস ট্রান্সপোর্ট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল)। এর মধ্যেই ট্রেনের পরীক্ষামূলক চলাচল শুরু হয়েছে। উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেলের দূরত্ব ২০ দশমিক ১০ কিলোমিটার। এ পথে ১৬টি স্টেশন রয়েছে।


   আরও সংবাদ